Pallibarta.com | রংপুরে কমেছে সয়াবিনের দাম, বেড়ে দ্বিগুণ বেগুন-শসা - Pallibarta.com

সোমবার, ১৬ মে ২০২২

রংপুরে কমেছে সয়াবিনের দাম, বেড়ে দ্বিগুণ বেগুন-শসা

রংপুরে কমেছে সয়াবিনের দাম, বেড়ে দ্বিগুণ বেগুন-শসা

রংপুরের বাজারে কমতে শুরু করেছে ভোজ্যতেলের দাম। সপ্তাহের ব্যবধানে কমেছে পেঁয়াজের দামও। এছাড়া ডিম, কাঁচামরিচ, সজনে ডাটার দাম কমলেও বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে বেগুন ও শসার দর। তবে অপরিবর্তিত রয়েছে চাল ও মাছের বাজার।

মঙ্গলবার (৫ এপ্রিল) রংপুর নগরীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, খুচরা বাজারে এক লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেল এখন ১৬০ টাকা এবং পাঁচ লিটার তেল ৭৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। গত সপ্তাহে এক লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেল ছিল ১৬৮ ও পাঁচ লিটারের বোতল ছিল ৭৮০ টাকা। তবে খোলা সয়াবিন গত সপ্তাহের মতোই ১৬৫-১৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে, গত সপ্তাহের মতোই ব্রয়লার মুরগি খুচরা বাজারে ১৬০-১৭০ টাকা, পাকিস্তানি মুরগি ২৮০-২৯০ এবং পাকিস্তানি লেয়ার ২৪০-২৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। তবে দাম বেড়েছে দেশি মুরগির। গত সপ্তাহে ৪৪০-৪৫০ টাকায় বিক্রি হলেও আজ তা ৪৬০-৪৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া গরুর মাংসে কোনো হেরফের নেই। ৬০০-৬২০ টাকা এবং খাসির মাংস ৮৫০-৯০০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

আমতলা বাজারের মুরগি ব্যবসায়ী আল-আমিন বলেন, গত সপ্তাহের মতোই ব্রয়লার ও পাকিস্তানি মুরগি বিক্রি হচ্ছে। তবে দেশি মুরগির আমদানি কমে যাওয়ায় কেজিপ্রতি ২০ টাকা পর্যন্ত মূল্যবৃদ্ধি পেয়েছে।

বাজার ঘুরে দেখা যায়, খুচরা পর্যায়ে কেজিপ্রতি টমেটো ২০-২৫ টাকা ও গাজর ২৫, মটরশুঁটি ৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। করলা ৫০-৬০ টাকা থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ৭০-৮০ টাকা, চিকন বেগুন ২০ থেকে বেড়ে ৩৫-৪০ টাকা, গোল বেগুন ৩০ টাকার জায়গায় ৪০-৫০ টাকা, সিম ২৫-৩০ টাকা, শসা ৩০ টাকা থেকে লাফিয়ে ৬০-৭০ টাকা, পেঁপে ২৫ টাকা, লেবু প্রতিহালি ২৫-৩০ টাকা, কাঁচা মরিচের কেজি ৭৫-৮০ টাকা থেকে কমে ৫৫-৬০ টাকা, শুকনা মরিচের কেজি ৩৫০ টাকা, প্রতি পিস বাঁধাকপি ২০ টাকা, ফুলকপি ৩০-৩৫ টাকা, লাউ প্রতি পিস ৪০-৪৫ টাকা, কাঁচা কলা হালি ২০-২৫ টাকা, ঢেঁড়স ৬০-৭০ টাকা, বরবটি ৪০-৪৫ টাকা, পটল ৬০-৭০ টাকা, সজনে ৭০-৮০ টাকা, প্রতি কেজি মিষ্টি আলু ও মিষ্টি কুমড়া ২৫-৩০ টাকা এবং দেশি পেঁয়াজ ৩০ ও ভারতীয় পেঁয়াজ ২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া আদা ৬০-৭০ টাকা থেকে বেড়ে ৮০-৯০ টাকা, রসুন আগের মতোই ৫০-৬০ টাকা এবং ব্রয়লার মুরগির ডিমের হালি খুচরা বাজারে দুই তিন টাকা কমে ৩১-৩২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বাজারে কার্ডিনাল আলু গত সপ্তাহের মতোই ১৪-১৫ টাকা এবং শিল আলু ২৫-২৬ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে।

কামাল কাছনা বাজারের সবজি বিক্রেতা রহিম মিয়া বলেন, বাজারে কিছু সবজির আমদানি বাড়ায় দাম কমেছে। তবে রমজান উপলক্ষে শসা ও বেগুনের চাহিদা বাড়ায় দামও কিছুটা বাড়ছে।

এছাড়া খোলা চিনির কেজি ৮০ টাকা এবং প্যাকেট চিনি ৮৫ টাকা, ছোলা ৮০ টাকা, মসুর ডাল মাঝারি ১০০ টাকা, চিকন ১৩০ টাকা, আটা প্যাকেট ৪০ টাকা ও খোলা ৩৬-৩৮ টাকা এবং ময়দা ৫৫-৬০ টাকা প্যাকেট বিক্রি হচ্ছে।

সপ্তাহের ব্যবধানে খুচরা বাজারে চালের দামে তেমন একটা হেরফের নেই। আগের মতোই স্বর্ণা (মোটা) ৪৬-৪৮ টাকা কেজি, বিআর২৯ তিন টাকা বেড়ে ৫৮ টাকা, বি২৮ আগের মতোই ৫৮-৬০ টাকা, মিনিকেট ৬৮ টাকা এবং নাজির শাইল ৭৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

মাছের বাজার ঘুরে দেখা যায়, অপরিবর্তিত রয়েছে সব ধরনের মাছের দর। রুই মাছ (আকার ভেদে) ২৫০-৩০০ টাকা, মৃগেল ২৭০-৩০০ টাকা, পাঙাস ১৩০-১৪০ টাকা, তেলাপিয়া ১৮০-২০০ টাকা, বড় চিংড়ি ৬০০-৬৫০ টাকা, কাতল ২৫০-২৬০ টাকা, বাটা ১৫০-১৬০ টাকা, সরপুঁটি ১৮০-২০০ টাকা, শিং ৩৫০-৪০০ টাকা এবং সিলভার কার্প ১৪০-২০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

আরো পড়ুন ...

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১