Pallibarta.com | মুক্তিপণ নিয়ে ট্রলারসহ ২০ জেলেকে ছেড়ে দিলো মিয়ানমার পুলিশ - Pallibarta.com

বৃহস্পতিবার, ২ ডিসেম্বর ২০২১

মুক্তিপণ নিয়ে ট্রলারসহ ২০ জেলেকে ছেড়ে দিলো মিয়ানমার পুলিশ

মুক্তিপণ নিয়ে ট্রলারসহ ২০ জেলেকে ছেড়ে দিলো মিয়ানমার পুলিশ

মুক্তিপণ নিয়ে ট্রলারসহ ২০ জেলেকে ছেড়ে দিলো মিয়ানমার পুলিশবাংলাদেশি সেই তিনটি ট্রলারসহ ২০ জেলে ও মাঝিকে ছেড়ে দিয়েছে মিয়ানমার বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি)। তবে ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ নিয়ে তাদের ছাড়া হয় বলে খবর পাওয়া গেছে।বুধবার (১০ নভেম্বর) সকাল ৯টার দিকে জেলে ও মাঝিরাসহ ট্রলার তিনটি টেকনাফ পৌর সভার কাখুকখালী (কেকে খাল) ঘাটে ফিরে আসে।ট্রলার তিনটি টেকনাফ পৌরসভার নাইট্যং পাড়ার ফজল করিম, ৭ নম্বর ওয়ার্ড চৌধুরী পাড়ার সালমান ও ৯ নম্বর ওয়ার্ড দক্ষিণ জালিয়া পাড়ার মো. ছৈয়দের।

৮ নভেম্বর বেলা ১১টার দিকে সেন্টমার্টিন দ্বীপের দক্ষিণে মিয়ানমারের সিটওয়ে (আকিয়াব) শহরের মংডু এলাকার আংডাং-কুলুং উপকূল থেকে তাদের ধরে নিয়ে যাওয়া হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রতিদিনের মতো ৫ নভেম্বর ট্রলার নিয়ে মাছ শিকারে বের হন জেলেরা। কিন্তু ৮ নভেম্বর দুপুরে জানা যায় বঙ্গোপসাগরের মিয়ানমার সীমান্তে আংডাং কুলুং এলাকা থেকে বিজিপি সদস্যরা বাংলাদেশি মাছ ধরার তিনটি ট্রলার ধরে নিয়ে গেছে। সেখানে ১৮-২০ জন জেলেও আছেন।

একটি সূত্র জানা যায়, প্রতি ট্রলারে দুই লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেছে বিজিপি। তবে দেনদরবার করে ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দিয়ে তারা ফিরে আসেন। যদিও বিষয়টি প্রশাসনকে অবহিত করা হয়নি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ফিরে আসা নৌকার মালিক ও মাঝি ফজল করিম তা বলতে অস্বীকৃতি জানান।

তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে ফিরে এক ট্রলারের মাঝি জানান, সালমানের ট্রলারের জন্য দুই লাখ আর বাকি দুটি ট্রলারের জন্য তিন লাখ টাকা দিয়ে ফিরে আসেন তারা। নুরুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি এ সংক্রান্ত লেনদেন করেন।

ওই ট্রলার মাঝি আরও জানান, বুধবার সকাল থেকে কেকে ঘাট দিয়ে মাছ শিকারে ট্রলার যাওয়া বন্ধ ছিল। বিকেলে বোট মালিক সমিতির পিড়াপিড়িতে দু-একটি নৌকা সাগরে রওয়ানা দেয়।

বিজিবি টেকনাফ ২ ব্যাটালিয়ন পরিচালক (সিও) লে. কর্নেল মোহাম্মদ ফয়সাল হাসান খান জাগো নিউজকে বলেন, ট্রলারগুলো তাদের মতো দেনদরবার করে ফিরে এসেছে জেনেছি।

আরো পড়ুন ...

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১