আন্তর্জাতিকশীর্ষ-১

মিয়ানমারে রাতভর তাণ্ডবে নিহত ৬০, লাশও পায়নি পরিবার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

মিয়ানমারে সেনা সমর্থিত সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে শুক্রবার রাতভর অভিযান চালিয়েছে নিরাপত্তা বাহিনী। এই সময়ে অনর্গল গুলিবর্ষণে প্রাণ হারিয়েছেন কমপক্ষে ৬০ জন। অভিযোগ উঠেছে, নিহতদের লাশ তাদের পরিবার বা স্থানীয়রা সংগ্রহ করতে পারেনি। অধিকাংশই নিয়ে গেছে নিরাপত্তা বাহিনী।

জান্তা বাহিনী শুধু গুলিই করেনি, তারা মেশিনগানের গুলি, গ্রেনেড এবং মর্টার ব্যবহার করেছে বিক্ষোভকারীদের দমানোর জন্য।

সংবাদমাধ্যম রেডিও ফ্রি এশিয়ার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মিয়ানমারের বাগো শহরে শুক্রবার পুলিশ ও সেনাবাহিনী গুলিবৃষ্টি চালিয়েছে। রাজপথে বিক্ষোভকারীদের ব্যারিকেডও তুলে নিয়েছে তারা।

এক প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, সেনা সদস্যরা ভারী অস্ত্র নিয়ে আক্রমণ চালিয়েছে। এমনকি আমরা মর্টার শেলও পেয়েছি। মেশিনশান দিয়েও প্রচুর গুলি করা হয়েছে। তাজা গুলির পাশাপাশি সেনারা গ্রেনেড লঞ্চার ব্যবহার করছিলো।

আরেক প্রত্যক্ষদর্শী বলছেন, রাস্তা পরিস্কার করতে পথচারীদের ওপরও গুলি করেছে সেনারা।

আশঙ্কা করা হচ্ছে- নিরাপত্তা বাহিনীর রাতভর তাণ্ডবে হতাহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে।

রেডিও ফ্রি এশিয়াকে স্থানীয় আরেক বাসিন্দা বলেন, আক্রমণের পর সবাই ছুটোছুটি শুরু করে। রাত ৮টা পর্যন্ত মাত্র তিনজনের মরদেহ সংগ্রহ করতে পেরেছেন তারা। বাকিগুলো সেনারা নিয়ে জড়ো করেছে জেয়ামুনি প্যাগোডা এবং কাছাকাছি একটি স্কুলে।

এদিকে, রাষ্ট্রপরিচালিত মিয়ানমার রেডিও ও টেলিভিশনের (এমআরটিভি) এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শুক্রবার ১৯ বেসামরিক লোককে কোর্ট মার্শালের মাধ্যমে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে জান্তা সরকার। তাদের বিরুদ্ধে গত মাসে ইয়াঙ্গুনের ওক্কালাপা এলাকায় এক সেনা কর্মকর্তাকে পেটানো এবং নির্যাতন করে আরেক ব্যক্তিকে হত্যার অভিযোগ আনা হয়েছে।

নাগরিক বার্তা/ডেস্ক/তারেক

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button