Pallibarta.com | বৃহস্পতিবারের সংবাদ সম্মেলন স্থগিত করলেন শিক্ষামন্ত্রী - Pallibarta.com

মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১

বৃহস্পতিবারের সংবাদ সম্মেলন স্থগিত করলেন শিক্ষামন্ত্রী

বৃহস্পতিবারের সংবাদ সম্মেলন স্থগিত করলেন শিক্ষামন্ত্রী

বৃহস্পতিবারের সংবাদ সম্মেলন স্থগিত করলেন শিক্ষামন্ত্রী ।
শিক্ষাখাতে অনিয়মের অভিযোগে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ-টিআইবির বক্তব্যের প্রতিবাদে ডাকা সংবাদ সম্মেলন স্থগিত করেছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। বুধবার (৬ অক্টোবর) সন্ধ্যায় শিক্ষা মন্ত্রণালয় এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা এম এ খায়েরের পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনির পূর্বঘোষিত আগামীকালের (বৃহস্পতিবার) সংবাদ সম্মেলন অনিবার্য কারণবশত স্থগিত করা হয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে এ সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করা হবে।

জানা গেছে, টিআইবির প্রকাশিত শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনিয়ম-দুর্নীতির বিষয়ে প্রতিবাদ জানাতে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলনে আসার সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু শারীরিক অসুস্থতার কারণে সংবাদ সম্মেলন পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। আগামী সপ্তাহের শুরুতে শিক্ষামন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে আসতে পারেন বলেও জানা গেছে।

সম্প্রতি টিআইবির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শিক্ষাখাতের বিভিন্ন কাজে সাড়ে তিন লাখ থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ১৫ লাখ টাকা পর্যন্ত লেনদেন হয়। এসব নিয়মবহির্ভূত অর্থ আদায়ে স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা, এমপিওভুক্ত মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিচালনার দায়িত্বে থাকা স্কুল ম্যানেজিং কমিটি (এসএমসি) ও কলেজ পরিচালনার দায়িত্বে থাকে গভর্নিং বডির (জিবি) সংশ্লিষ্টরা জড়িত বলে টিআইবির গবেষণায় উঠে এসেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানে এমপি বা প্রভাবশালী রাজনৈতিক ব্যক্তির হস্তক্ষেপে সভাপতি মনোনীত করা হয়। এতে অনেকাংশে যোগ্যতাসম্পন্ন ব্যক্তি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিচালনায় সম্পৃক্ত হতে পারে না, যা শিক্ষার মানোন্নয়নে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। কমিটির সভাপতি-সদস্য হওয়ার ক্ষেত্রে শিক্ষাগত যোগ্যতার বাধ্যবাধকতা না থাকায় অনেক ক্ষেত্রে অক্ষরজ্ঞানহীন লোক কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত হয়। এতে শিক্ষকদের সঙ্গে কমিটির সদস্যদের কার্যক্রম পরিচালনায় বিভিন্ন সমস্যা ও দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়।

গবেষণায় আরও উঠে এসেছে, বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) কর্তৃক সুপারিশ করা সহকারী শিক্ষকের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যোগদানে ৫০ হাজার থেকে সর্বোচ্চ দুই লাখ টাকা পর্যন্ত লেনদেন হয়। সহকারী গ্রন্থাগারিক নিয়োগে দুই থেকে সর্বোচ্চ তিন লাখ টাকা পর্যন্ত লেনদেন হয়। এ টাকা দিতে হয় স্কুল ম্যানেজিং কমিটি ও কলেজ পরিচালনার দায়িত্বে থাকে গভর্নিং বডির সঙ্গে জড়িতদের।

এসব নিয়মবহির্ভূত অর্থ আদায়েও স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা, এমপিওভুক্ত মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিচালনার দায়িত্বে থাকে স্কুল ম্যানেজিং কমিটি ও কলেজ পরিচালনার দায়িত্বে থাকা গভর্নিং বডির সংশ্লিষ্টরা জড়িত।

টিআইবি জানায়, শিক্ষক এমপিওভুক্তিতে পাঁচ হাজার টাকা থেকে শুরু করে এক লাখ পর্যন্ত টাকা দিতে হয়। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিদর্শন ও নিরীক্ষার কাজে সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সব শিক্ষকের এক মাসের এমপিওর টাকা দিতে হয়। এ টাকা দিতে হয় পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরের (ডিআইএ) সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের। সরকারি স্কুলের শিক্ষক বদলিতে এক লাখ থেকে দুই লাখ টাকা দিতে হয়। এ টাকা দিতে হয় মধ্যস্বত্বভোগী, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের। প্রতিষ্ঠানের পাঠদানের অনুমতির জন্য এক লাখ টাকা থেকে শুরু করে পাঁচ লাখ এবং স্বীকৃতি প্রদানে পাঁচ হাজার থেকে শুরু করে ৩০ হাজার টাকা দিতে হয় নিয়মের বাইরে। অনিয়ম, দুর্নীতি বন্ধে কয়েক দফা সুপারিশ করেছে টিআইবি।

সূত্র : https://www.jagonews24.com/education/news/705072

আরো পড়ুন ...

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১