Pallibarta.com | ফার্মেসিতে টিকা বিক্রির দায় নিবে না স্বাস্থ্য অধিদপ্তর - Pallibarta.com

বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১

ফার্মেসিতে টিকা বিক্রির দায় নিবে না স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

রাজধানীর দক্ষিণখানে ফার্মেসিতে কোভিড টিকা পাওয়ার ঘটনায় দায় নিতে নারাজ স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। তবে টিকার বিতরণ ব্যবস্থাপনায় কোনো ধরনের ত্রুটি থাকলে তা পর্যালোচনা করতে চায় প্রতিষ্ঠানটি। পাশাপাশি তদন্তে কোভিড কর্মকর্তা-কর্মচারীর সম্পৃক্ততা পাওয়া গেলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

সাধারণত কোভিড টিকা কঠোর ব্যবস্থাপনার মধ্যে সুরক্ষিত অবস্থায় থাকার কথা। কিন্তু আইনশৃংখলা বাহিনীর অভিযানে গত বুধবার রাতে রাজধানীর দক্ষিণখানে একটি ফার্মেসিতে মডার্নার টিকা পাওয়ার ঘটনা নানা প্রশ্নের জন্ম দেয়।

এ ঘটনায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর কিংবা সম্প্রসারিত টিকা কর্মসূচি-ইপিআই দায় সম্পর্কে জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক এবং কোভিড টিকা বিতরণ ও প্রস্তুতি বিষয়ক জাতীয় কমিটির প্রধান অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, ‘আমরা যারা টিকা দিচ্ছি, আমরা সবাই আন্তরিকভাবে চাই, সঠিকভাবে সব মানুষের কাছে টিকা পৌঁছে যাক। এ সুযোগ যদি দুর্বৃত্তায়নের জন্য ব্যবহার করে থাকে কেউ, সে দায়বদ্ধতা অধিদপ্তরের নয়। তবে আমরা সব সময় নিশ্চিত করতে চাই, টিকা ব্যবস্থাপনা যাতে সুষ্ঠু থাকে। সবাই যাতে সঠিকভাবে বিনামূল্যে টিকা পায়।’

‘তবে সার্বিকভাবে টিকা বিতরণে কোনো জায়গায় কোনো ধরনের সমস্যা আছে কিনা, কিংবা হতে পারে কিনা, সেটা আমরা পর্যালোচনা করছি,’ বলেন তিনি।

সুষ্ঠুভাবে টিকা ব্যবস্থাপনা নিশ্চিতে জনসাধারণেরও ভূমিকা রয়েছে বলে মনে করেন অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা। দ্রুত টিকা পাওয়ার জন্য ‘অন্য পদ্ধতিতে’ যাওয়ার চিন্তাভাবনা পরিহার করার অনুরোধ করেন কোভিড টিকা বিতরণ ও প্রস্তুতি কমিটির প্রধান।

নির্ধারিত টিকা কেন্দ্রের বাইরে অন্য কোথাও থেকে টিকা না নেওয়ার পরামর্শের পাশাপাশি ঝুঁকির বিষয়েও সতর্ক করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক। তিনি বলেন, ‘আমরা যে টিকা কেন্দ্রগুলো নির্ধারণ করেছি, সেটা অনেকগুলো বিষয় চিন্তা করেই কেন্দ্র নির্ধারণ করা হয়েছে। একটি বিষয় হলো টিকা রাখার নির্ধারিত তাপমাত্রা বজায় রাখতে হয়। দ্বিতীয় বিষয় হলো, টিকা নেওয়ার পর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিলে কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এসবের পরিপ্রেক্ষিতেই আমরা নির্দিষ্ট কেন্দ্রে টিকা প্রদান করছি। সেটা আমরা প্রচারও করেছি, কোথায় কোথায় টিকা দেওয়া হয়। তার বাইরে জনগণ যদি কোথাও সম্পৃক্ত হয়, সেক্ষেত্রে সরকারের কোনো দায়বদ্ধতা থাকবে না।’

তবে দক্ষিণখানে ফার্মেসিতে টিকা পাওয়ার ঘটনায় এখনই স্পষ্ট করে কিছু বলতে নারাজ স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। যদিও প্রতিষ্ঠানটির শীর্ষ কর্মকর্তারা বলছেন, তারা এখন তদন্তের ফলাফলের অপেক্ষায়।

অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম বলেন, ‘এটা একটা আইনি প্রক্রিয়া। ওখানে পুলিশ গিয়েছে। অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে। সেটা তদন্ত চলছে। ওই তদন্তের প্রতিবেদন পাওয়া সাপেক্ষে বাকি পদক্ষেপ নেওয়া হবে। আর আমাদের দিক থেকে যে তদন্ত কমিটি হয়েছে, সেখানে আমরা দেখতে চাই আমাদের অধিদপ্তর বা আমাদের যারা টিকা দিয়েছে, তাদের সম্পৃক্ততা আছে কিনা। সেটা যদি সত্যি সত্যিই পাওয়া যায়, তাহলে অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

আরো পড়ুন ...

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০