প্রলোভনে ধর্ষণের পর অন্যত্র বিয়ে, ছাত্রলীগ নেতার বাড়িতে তরুণী - Pallibarta.com

শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২

প্রলোভনে ধর্ষণের পর অন্যত্র বিয়ে, ছাত্রলীগ নেতার বাড়িতে তরুণী

প্রলোভনে ধর্ষণের পর অন্যত্র বিয়ে, ছাত্রলীগ নেতার বাড়িতে তরুণী

রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার হারাগাছ পৌর শহরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ, পরে অন্যত্র বিয়ে করায় ছাত্রলীগ নেতা শারাফাত হোসেন সোহাগ নেতার বাড়িতে অবস্থান নেয় এক তরুণী। এ ঘটনায় ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

পুলিশ নিরাপত্তার কারণে তরুণীকে রংপুর ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে নিয়ে এসেছে।

জানা গেছে, ঘটনার শিকার তরুণীকে বিয়ের আশ্বাস দিয়ে অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা একাধিকবার ধর্ষণ করে। পরে বিষয়টি গোপন রাখার হুমকি দিয়ে ওই ছাত্রনেতা অন্যত্র বিয়ে করেন। গত শনিবার বিয়ের দাবিতে ছাত্রলীগ নেতা বাড়িতে আশ্রয় নেন ওই তরুণী। এরপর অভিযুক্ত শারাফাত হোসেন সোহাগ বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যায়।

শনিবার বিকেলে হারাগাছ পৌর শহরের মিয়াপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পরে রাত সাড়ে ৮টার দিকে ওই তরুণীকে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। বর্তমানে ওই তরুণীকে নিরাপত্তার স্বার্থে ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে রাখা হয়েছে। পরের দিন রোববার তরুণীর শারীরিক অবস্থা খারাপ হলে তার পরিবারের জিম্মায় দিয়েছে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ওই তরুণী একটি সরকারি কলেজের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। পাশাপাশি আইন কলেজেও অধ্যয়নরত। প্রেমিক শারাফাত হোসেন সোহাগ একই এলাকার বস্তা ব্যবসায়ী মোশাররফ হোসেনের ছেলে। সোহাগ স্থানীয় হারাগাছ সরকারি কলেজের অনার্স শেষ বর্ষের ছাত্র ও একই কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি পদে রয়েছেন।

বিয়ের দাবি তোলা ওই তরুণী বলেন, দুই বছর ধরে সোহাগের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক। এরই মধ্যে সোহাগ তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে। হঠাৎ শনিবার বিকালে জানতে পারি, সোহাগ গোপনে কাউনিয়া উপজেলার মীরবাগ এলাকায় কয়েক দিন আগে বিয়ে করেছে। তখন বিয়ের দাবিতে সোহাগের বাড়ির সামনে অবস্থান নিলে সোহাগ সঙ্গে সঙ্গে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়।

তরুণী আরও বলেন, সোহাগের পরিবার আমার সঙ্গে খারাপ আচরণ করে। একপর্যায়ে তারা পুলিশকে ফোন দেয়। পুলিশ এসে আমাকে রাত সাড়ে ৮টায় তাদের ভ্যানে করে থানায় নিয়ে যায়।

ওই তরুণী আরও বলেন, আমার বাবা একজন প্যারালাইজড রোগী। আমার আর কোনো উপায় নেই। সোহাগকে ছাড়া এখন অন্য কাউকে বিয়ে করতেও পারব না। কিন্তু এরই মধ্যে সে গোপনে বিয়ে করেছে। এখন আর তাকে বিয়ে করতে চাচ্ছি না। স্থানীয় দলীয় নেতারাও সোহাগের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে। এ কারণে বাধ্য হয়ে সোহাগের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা করেছি।

এদিকে অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সোহাগের পরিবারের কেউ কথা বলতে রাজি হননি।

এ বিষয়ে হারাগাছ সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেন জানান, শারাফাত হোসেন সোহাগ কলেজ ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটির সহ-সভাপতি পদে রয়েছেন। আমি বিভিন্নজনের কাছ থেকে তার বাড়িতে এক তরুণীর অবস্থান নেওয়ার কথা শুনেছি। রংপুরের বাইরে ছিলাম, তাই বেশি কিছু জানি না। তবে সে যদি সংগঠন বিরোধী কোনো কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকে, তাহলে তার বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ছাত্রলীগে কোনো অপরাধী-বিতর্কিত ব্যক্তির স্থান নেই বলেও তিনি জানান।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন হারাগাছ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল করিম। তিনি জানান, শনিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ওই তরুণীকে উদ্ধার করে থানায় আনা হয়। বর্তমানে নিরাপত্তার স্বার্থে ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে রাখা হয়েছে। ওই তরুণী বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেছেন। অভিযুক্ত সোহাগকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হলে তার মেডিকেল পরীক্ষা সম্পন্ন করা হবে।

আরো পড়ুন ...

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১