অপরাধশীর্ষ-৪

দু’দিনের রিমান্ডে ‘ইয়াবায় কোটিপতি’ ছাত্রলীগ নেতা

ডেস্ক রিপোর্ট:

ইয়াবা বাণিজ্য করে কোটিপতি হওয়া গাজীপুরের আলোচিত ছাত্রলীগ নেতা মো. রেজাউল করিমকে দুই দিনের রিমান্ডে পেয়েছে পুলিশ।

গ্রেফতারের পর আজ বুধবার সকালে পুলিশ তাকে গাজীপুর ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে। সেখানে ৭ দিনের রিমান্ড দাবি করা হয়। বিচারক তার দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠানোর নিদের্শ দিয়েছেন।

২৭ এপ্রিল দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে গাজীপুর মেট্রোপলিটন টঙ্গী পূর্ব থানা পুলিশ রেজাউলকে গ্রেফতার করে। তিনি টঙ্গী সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক।

গত ২৬ এপ্রিল রেজাউল করিমের মাদক ব্যবসা নিয়ে ‘মাদক সম্রাজ্ঞীর সঙ্গে ছাত্রলীগ নেতার ফোনালাপ ফাঁস’ শিরোনামে সংবাদপত্রে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। ওই সংবাদ প্রকাশের পর পুলিশ প্রশাসন নড়েচড়ে বসে। সংবাদের সত্যতা নিশ্চিত হয়ে পুলিশ অভিযান চালিয়ে আলোচিত এই ছাত্রলীগ নেতাকে গ্রেফতার করে।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) উপ-কমিশনার জাকির হাসান গণমাধ্যমকে জানান, রেজাউলের বিরুদ্ধে মাদক বাণিজ্যে সম্পৃক্ততা ছাড়াও জিএমপির টঙ্গী পশ্চিম থানায় চাঁদাবাজির মামলা রয়েছে। গতরাত সাড়ে ১২টার দিকে তাকে মহানগরের টঙ্গী পূর্ব থানাধীন দত্তপাড়া এলাকায় তার নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

তিনি আরো জানান, একই দিন নবীন হোসেন নামে আরেক মাদক কারবারিকে আটক করা হয়। রিমান্ডে থাকা আসামি জাকির হোসেনের স্বীকারোক্তি মোতাবেক পলাতক আসামি মো. রেজাউল করিম ও মো. নবীন হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তার কাছ থেকে দুইশ’ ৯৪ পুরিয়া গাঁজা এবং ৫০০ পিস্ ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়।

ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে নবীন পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে উদ্ধার করা ৫০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট বিক্রির উদ্দেশ্যে রেজাউল করিম তাকে দিয়েছে। এ ঘটনায় টঙ্গী পূর্ব থানায় মামলা করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গাজীপুরের টঙ্গী সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় সহ-সম্পাদক মো. রেজাউল করিম ও টঙ্গীর মাদক সম্রাজ্ঞী সাঈদা বেগমের এক লাখ পিস ইয়াবার চালান সংক্রান্ত ফোনালাপ ফাঁস হওয়ার পর তারা নতুন কৌশলে মাদক ব্যবসা চালাচ্ছিলো।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button