Pallibarta.com | টানা বৃষ্টিতে ঠাকুরগাঁওয়ের কৃষকের কপালে চিন্তার ভাঁজ - Pallibarta.com

বুধবার, ১ ডিসেম্বর ২০২১

টানা বৃষ্টিতে ঠাকুরগাঁওয়ের কৃষকের কপালে চিন্তার ভাঁজ

টানা বৃষ্টিতে ঠাকুরগাঁওয়ের কৃষকের কপালে চিন্তার ভাঁজ

টানা বৃষ্টিতে ঠাকুরগাঁওয়ের কৃষকের কপালে চিন্তার ভাঁজ ।
দু’দিনের টানা বৃষ্টি ও ঝড়ো বাতাসে ক্ষতির মুখে পড়েছেন ঠাকুরগাঁওয়ের কৃষকরা। আর কিছুদিন পরই সোনালি ধান ঘরে তুলবেন তারা। এর আগেই ফসলের মাঠ তলিয়ে যাওয়ায় চিন্তার ভাঁজ এসব কৃষকের কপালে।

শুক্রবার (২২ অক্টোবর) সরেজমিনে দেখা গেছে, টানা বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে রোপা আমন ধান, আলু ও অন্যান্য শাকসবজির ক্ষেত। এদিকে ঝড়ো হাওয়ায় ফসলের ব্যাপক ক্ষতি কিছুটা পুষিয়ে নিতে আধপাকা ধান কেটে নিচ্ছেন কৃষকরা। সদর উপজেলার নারগুন ও বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার পড়িয়া ইউনিয়নের কৃষক আব্দুল ওহাব, সমশের আলী, আলাউদ্দিনসহ অনেকে জানান, টানা দু’দিনের হঠাৎ বৃষ্টি ও ঝড়ো বাতাসে কৃষক সর্বস্বান্ত। বৃষ্টির পানিতে রোপা আমন, শীতকালীন নতুন সবজি ও আলু রোপণের পর বীজের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

ঋণ করে চাষাবাদ করে দুর্যোগে কবলে পড়লেও কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে কোনো পরামর্শ বা খোঁজ নেয়নি বলে অভিযোগ তাদের। সেই সঙ্গে সরকারি সহায়তার দাবি করেছেন ক্ষতির মুখে পড়া কৃষকরা। জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা, রাণীশংকৈল, হরিপুর ও সদরের কৃষকরা তুলনামূলক বেশি ক্ষতির মুখে পড়েছেন।

কৃষি বিভাগের তথ্য মতে, টানা দু’দিনে ৬৫ দশমিক ৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাতে জেলায় প্রায় নয় হাজার হেক্টর জমির ফসল ক্ষতির মুখে পড়েছে। এর মধ্যে প্রায় সাত হাজার হেক্টর জমির ধান ও আলুসহ অন্যান্য শাকসবজি। এ বিষয়ে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক আবু হোসেন জানান, দুর্যোগের কবলে পড়ে জেলার অনেক কৃষক ক্ষতির মুখে পড়েছেন।

তিনি বলেন, এ অবস্থার পর থেকেই কৃষকদের বেশকিছু পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। তালিকা প্রণয়ন করা হচ্ছে। মাঠপর্যায়ে কৃষি কর্মকর্তারা কাজ করছেন। তবে কৃষক যে অভিযোগ করেছেন তা সঠিক নয়। সব কৃষকের মাঠে যাওয়া হয়নি কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্ত সব কৃষকের মাঠে যাওয়ার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

আরো পড়ুন ...

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১