Pallibarta.com | চিকিৎসা সংকট: জন্ম নেওয়া ৫ শিশুর মধ্যে ৪টির মৃত্যু - Pallibarta.com

বুধবার, ১ ডিসেম্বর ২০২১

চিকিৎসা সংকট: জন্ম নেওয়া ৫ শিশুর মধ্যে ৪টির মৃত্যু

চিকিৎসা সংকট: জন্ম নেওয়া ৫ শিশুর মধ্যে ৪টির মৃত্যু

চিকিৎসা সংকট: জন্ম নেওয়া ৫ শিশুর মধ্যে ৪টির মৃত্যু ।
কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার পান্টি ইউনিয়নের পান্টি গ্রামের সাদিয়া (২৪) নামে এক মা পাঁচ সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। একসঙ্গে চার মেয়ে ও এক ছেলের জন্ম হলেও একে একে মারা গেছে চার সন্তান।

বুধবার (৩ নভেম্বর) বেলা সাড়ে ১০টার দিকে প্রথম মারা যায় ছেলে সন্তানটি। পরে একে একে ওইদিন সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত আরও দুই সন্তানসহ মোট তিন সন্তান মারা যায়। তারপর বৃহস্পতিবার (৪ নভেম্বর) সকালে আরও একজন মারা গেলে পাঁচটির মধ্যে চারটিই মারা যায়।

সাদিয়ার স্বামী সোহেল রানা বলেন, উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছিল চিকিৎসকরা, আমার টাকা থাকলে হয়তো এমনটা হতো না।

তিনি বলেন, আমার চারটি সন্তান মারা গেছে। খুবই কষ্ট লাগছে। আর বাকি এক মেয়ে শিশুও ঝুঁকিতে আছে। স্ক্যানো ওয়ার্ডে তার অক্সিজেন চলছে। তবে তাদের মা সুস্থ আছে। শিশুর ওজন কম হওয়ায় ঢাকায় নিয়ে যেতে বলেছেন চিকিৎসক। কিন্তু অর্থের অভাবে ঢাকায় নিতে পারিনি।

সোহেল রানার বাবা সামাদ আলী বলেন, চার শিশু মারা গেছে। তাদের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। গ্রামের কবরস্থানে আলাদাভাবে তাদের দাফন করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, আমরা দরিদ্র, আমাদের অর্থনৈতিক অবস্থা ভালো না। ছেলে সোহেলের চা দোকানের আয়ে সংসার চলে। টাকার অভাবে শিশুদের ঢাকায় নিয়ে যেতে পারিনি। যদিও চিকিৎসকরা প্রথম থেকেই ঢাকায় নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। টাকার অভাব না থাকলে হয়তো শিশুদের ঢাকায় নিয়ে যেতে পারতাম। সবগুলো শিশু একসঙ্গে বেড়ে উঠলে ভালো লাগতো।

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আশরাফুল আলম বলেন, গর্ভধারণের পাঁচ মাসের মাথায় জন্ম নেওয়া শিশুদের ওজন স্বাভাবিকের চেয়ে কম ছিল। বাচ্চাদের ওজন ৪৩০ গ্রাম থেকে ৬৫০ গ্রামের মধ্যে।

তিনি আরও বলেন, জন্ম নেওয়া শিশুদের চারজন মারা গেছে। বুধবার সকালে একমাত্র ছেলে সন্তানটি ও বিকেলে আরও দুই কন্যা সন্তান এবং বৃহস্পতিবার সকালে আরও এক কন্যা সন্তান হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।

আরো পড়ুন ...

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১