এক্সক্লুসিভতথ্য ও প্রযুক্তিশীর্ষ-১

গুগলের নতুন নিয়ম: লোকসানে পড়তে যাচ্ছে ইউটিউবাররা

প্রযুক্তি জায়ান্ট গুগলের নতুন সিদ্ধান্তে ইউটিউবারদের কপালে ভাঁজ পড়েছে। কনটেন্ট ক্রিয়েটরদের আয়ের জনপ্রিয় মাধ্যম ইউটিউব। অথচ গুগলের নতুন নিয়মের কারণে আয়ের পরিমাণ কমতে যাচ্ছে ইউটিউবারদের।

গুগল ইউটিউবারদের জন্য নতুন করে কিছু নিয়ম পরিবর্তন এনেছে। যা মোটেও সুখবর নয়। নতুন নিয়ম নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ব্যতীত বিশ্বের যেকোনো প্রান্তের কনটেন্ট ক্রিয়েটরদের বেশ চিন্তায় পড়েছেন।

গুগলের নিয়ম অনুসারে, কনটেন্ট ক্রিয়েটারদের এবার ‘ইউএস’ ট্যাক্স দিতে হবে। তবে এই নিয়মের বাইরে থাকবেন যুক্তরাষ্ট্রের ইউটিউবাররা। অতিরিক্ত এই ট্যাক্সের বোঝা নিতে হবে না তাদের। তাছাড়া বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ইউটিউবারদের আয়ের একটি অংশ ‘ইউএস’ ট্যাক্স হিসেবে কেটে নেবে গুগল।

জানা গেছে, চলতি বছরের জুন মাস থেকে এই নিয়ম চালু করা হবে। ইতিমধ্যেই কনটেন্ট ক্রিয়েটর মেইল করে বিষয়টি জানাতে শুরু করেছে গুগল কর্তৃপক্ষ। মেইলের বার্তায় বলা হয়েছে, আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ইউটিউবারদের অ্যাডসেন্স-এ নিজেদের ট্যাক্স সংক্রান্ত তথ্য জমা দিতে হবে। এর জন্য সময়সীমাও বেঁধে দেওয়া হয়েছে। আগামী ৩১ মে-র মধ্যে এই তথ্য জমা দিতে হবে। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ট্যাক্স সংক্রান্ত তথ্য অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্টে জমা না করলে সেক্ষেত্রে ইউটিউবারের মোট মাসিক আয়ের ২৫ শতাংশ অর্থ কেটে নেবে গুগল। যুক্তরাষ্ট্র ব্যতীত, বিশ্বের বাকি সব দেশেই চালু হবে এই নিয়ম।

এতো কিছুর পরেও একটু সান্ত্বনা পেতেই পারেন ইউটিউবাররা। কেননা শুধুমাত্র যুক্তরাষ্ট্র থেকে উপার্জিত আয়ের ক্ষেত্রে ট্যাক্স পরিশোধ করতে হবে। যার অর্থ দাঁড়ায়, একজন ইউটিউবার নিজের মাসিক আয়ের যেটুকু অংশ তিনি যুক্তরাষ্ট্রের দর্শকদের থেকে উপার্জন করেছেন তার নির্দিষ্ট একটি অংশ ট্যাক্স হিসেবে দিতে হবে। শুধু বিজ্ঞাপন নয়, ইউটিউব প্রিমিয়াম, সুপার স্টিকার, সুপার চ্যাট এবং চ্যানেল মেম্বারশিপ- এসব ক্ষেত্রেও কাটা হবে ট্যাক্স। যুক্তরাষ্ট্র ছাড়া অন্যান্য দেশের দর্শকদের থেকে একজন ইউটিউবার যে আর্থিক উপার্জন করবেন সেক্ষেত্রে কোনো ট্যাক্স দিতে হবে না।

ট্যাক্সের পরিমাণ দেশ ভেদে আলাদা হবে। বিভিন্ন দেশের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের ট্যাক্স সংক্রান্ত যে চুক্তি রয়েছে তার উপরে ট্যাক্সের পরিমাণ নির্ভর করবে। যেমন ধরা যাক, আপনার দেশের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের ট্যাক্স সংক্রান্ত চুক্তি অনুযায়ী ধার্য ট্যাক্সের পরিমাণ আয়ের শতকরা ১৫ ভাগ। তাহলে যুক্তরাষ্ট্রের দর্শকদের কাছ থেকে মাসে আপনার ১০০ ডলার আয় হয়ে থাকলে, তার ১৫ শতাংশ অর্থাৎ ১৫ ডলার গুগলের খাতায় জমা করতে হবে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button